Tuesday, December 1, 2020
অন্যান্য সাধারণ ছুটি বাড়ানো হলো ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত

সাধারণ ছুটি বাড়ানো হলো ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত

করোনাভাইরাসের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে দেশে তৃতীয় দফায় ঘোষিত সাধারণ ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে ১১ এপ্রিল থেকে ১৪ এপ্রিল (পহেলা বৈশাখ) পর্যন্ত। 

“আগে ১১ তারিখ পর্যন্ত ছুটি ছিল। নতুন করে ১২ ও ১৩ এপ্রিল সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

১৪ এপ্রিল আগে থেকেই নির্বাহী আদেশে ছুটি (বাংলা নববর্ষের) ছিল, সেই ছুটিও এর সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হবে।

অর্থাৎ, নতুন করে ‘ছুটি’ বাড়ায় এখন তা বলবৎ থাকবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত।

দেশে করোনাভাইরাসের মহামারী মোকাবেলা এবং এর ব্যাপক বিস্তার রোধে এই ছুটি বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

বলা হয়েছে, জরুরি পরিসেবার (বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস, ফায়ার সার্ভিস, পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট ইত্যাদি) ক্ষেত্রে এ ব্যবস্থা প্রযোজ্য হবে না।

“কৃষিপণ্য, সার, কীটনাশক, জ্বালানি, সংবাদপত্র, খাদ্য, শিল্প পণ্য, চিকিৎসা সরঞ্জামাদি, জরুরি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পরিবহন এবং কাঁচা বাজার, খাবার, ওষুধের দোকান ও হাসপাতাল এ ছুটির আওতার বাইরে থাকবে।”

জরুরি প্রয়োজনে অফিস খোলা রাখা যাবে জানিয়ে ছুটির আদেশে বলা হয়েছে, প্রয়োজনে ঔষধশিল্প, উৎপাদন ও রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানা চালু রাখতে পারবে।

মানুষের জীবন জীবিকার স্বার্থে রিকশা-ভ্যানসহ যানবাহন, রেল, বাস সার্ভিস পর্যায়ক্রমে চালু করা হবে।

জনগণের প্রয়োজন বিবেচনায় ছুটিকালীন বাংলাদেশ ব্যাংক সীমিত আকারে ব্যাংকিং ব্যবস্থা চালু রাখার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

প্রথম দফায় বাংলাদশ  সরকার ২৬শে মার্চ থেকে ৪ঠা এপ্রিল পর্যন্ত দশদিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে।

এরপর ৩১শে মার্চ জানানো হয় ছুটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে আরো পাঁচদিন, অর্থাৎ ৯ই এপ্রিল পর্যন্ত।

আর ১০ ও ১১ই এপ্রিল শুক্র ও শনিবার হওয়ায় ১২ তারিখ থেকে কর্মদিবস পালন করার কথা ছিল বাংলাদেশে।

এর আগে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার ১৭ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

বাতিল করা হয় ১লা এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষা।

অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণার পর ২৪ মার্চ আরেক ঘোষণায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটির মেয়াদ ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

একজন কর্মকর্তা বলেন,রোজার ছুটির সঙ্গে এই ছুটি মিলিয়ে ঈদের পর সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তাভাবনা করছে সরকার।

সেই সঙ্গে সবাইকে যার যার বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়ায় বিশ্বের আরও অনেক দেশের মত বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষও ঘরবন্দি দশার মধ্যে পড়ে, যাকে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে বর্ণনা করা হচ্ছে ‘লকডাউন’ হিসেবে।

সূত্রঃ www.mopa.gov.bd

নতুন রেকর্ড বাংলাদেশে- আক্রান্ত ১৮ জন, মৃত্যু ১। বিস্তারিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সাম্প্রতিক আপডেট

স্বাস্থ্যকর্মীদের পর্যাপ্ত সরঞ্জাম নেই,চিকিৎসায় বেহাল দশা

চীনে গত ডিসেম্বরেই করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। মার্চের ৮ তারিখ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপরই স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা ব্যবস্থার বিষয়টি আলোচনায় আসে।...

যুক্তরাষ্ট্র WHO তে অর্থায়ন বন্ধ করবে-ঘোষণা দিলেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন যে তিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে WHO (ডাব্লুএইচও) অর্থায়ন বন্ধ করতে যাচ্ছেন। কারণ করোনভাইরাস প্রাদুর্ভাবের প্রতিক্রিয়ায় এটি "এর...

নতুন আক্রান্ত ২১৯ জন, মৃত্যুবরণ করেছে ৪ জন

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ২১৯ জন। এছাড়া আরো ৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। নতুন আক্রান্ত ২১৯...

আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার অতিক্রম।নতুন আক্রান্ত ২০৯

করোনায় বাংলাদেশে মাত্র ৩৮ দিনেই আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার অতিক্রম করলো। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত হয়েছে ২০৯ জন।

মতামত